মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

ইতিহাস ও ঐতিহ্য

১৯৪৭ সনের ১৮ই আগষ্ট কুষ্টিয়া জেলা হিসাবে রূপ নেয়। কুষ্টিয়া জেলা প্রথমে রাজশাহী বিভাগে ও পরে খুলনা বিভাগের অন্তর্ভুক্ত হয়। কুষ্টিয়া সদর উপজেলা কুষ্টিয়া জেলার প্রাণ। ১৮৬০ সালে কলকাতার সাথে রেল যোগযোগ স্থাপন, রেনউইক ও যজ্ঞেশ্বর ইঞ্জিনিয়ারিং কারখানা, মোহিনী মিলস কুষ্টিয়া সদরে গড়ে ওঠে। শুরু থেকেই কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় ধান,পাট, আখ ও বিভিন্ন ধরনের সবজি, ফসল উৎপাদন হয়ে আসছে। কুষ্টিয়া সদর উপজেলার  অন্তর্ভুক্ত  ঝাউদিয়া গ্রামে চৌধুরী বাড়ীর উপর একটি প্রাচীন মসজিদ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পুরাকীর্তির একটি বিশেষ উল্লেখযোগ্য নিদর্শন। ঝাউদিয়ার এই মসজিদটির ভিতরে মোঘল শিল্পকলার অপূর্ব নিদর্শন নানা কারুকার্যে শোভিত রয়েছে। মোঘল সম্রাট শাজাহানের আমলে ঝাউদিয়ার মসজিদটি নির্মিত হয়। এমন অপূর্ব কারুকার্য শোভিত মসজিদ খুব কম দেখা যায়। এ মসজিদে একটি বড় গম্বুজ ও অনেক মাঝারী এবং ছোট গম্বুজ রয়েছে। কুষ্টিয়া সদর উপজেলার জগতিতে ঐতিহ্যবাহী কুষ্টিয়া সুগার মিলস অবস্থিত। অত্র উপজেলায় বিসিক শিল্প নগরী গড়ে উঠায় এখানে অনেকগুলো শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। তার মধ্যে বিআরবি গ্রুব অব ইন্ডাস্টিজ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সুনাম অর্জন করেছে। অত্র উপজেলায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় একদিকে যেমন কুষ্টিয়া জেলাসহ বাংলাদেশের সকল জেলার শিক্ষারদার উন্মুক্ত হয়েছে। তেমনি কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ঐতিহ্য বহুগুনে বৃদ্ধি পেয়েছে। ১৯৭১ সালে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পাকবাহিনীর যুদ্ধ হয়। ৮নং সেক্টরের অধীনে কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় যুদ্ধ হয়। তন্মধ্যে উজানগ্রাম ইউনিয়নের বংশীতলা , আবদালপুর ইউনিয়নের করিমপুর উল্লেখযোগ্য। কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বৃত্তিপাড়া বধ্যভূমি বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য বধ্যভূমি।